বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১২:২৮ পূর্বাহ্ন

ঘোষনাঃ-
সারাদেশে সকল জেলা ও উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ করা হইবে, আগ্রহী প্রার্থীগণকে নিম্ন ঠিকানায় অথবা ইমেইল এ আবেদন পত্র জমা দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হইলো।
শিরোনাম :
পাটগ্রামে সাংবাদিক ইফতেখার আহমেদ এর বাড়িতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি নওগাঁয় বিভিন্ন পয়েন্টে পানি বৃদ্ধি নওগাঁর আত্রাইয়ে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস পালিত ডিমলায় সমন্বয় ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন ডিমলায় বিনামূল্যে টিউবওয়েল বিতরণ বন্যার রেশ কাটতে না কাটতেই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে শুরু হয়েছে ভাঙন নওগাঁ আত্রাইয়ে আসন্ন উপনির্বাচন উপলক্ষে একমত বিনিময় সভা বুড়িমারী স্থলবন্দর থেকে ছেড়ে আসা ট্রেনের সাথে মালবাহী ট্রাকের সংঘর্ষে ট্রেন চালক আহত উপসহকারী কৃষি নিয়োগ বাস্তবায়নের দাবীতে অনির্দিষ্ট কালের অবস্থান পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা ও সাংবাদিক নাদিরা কিরণের সহায়তা পেলেন নির্যাতিতরা দহগ্রামের রাস্তায় পরিত্যক্ত অবস্থায় আড়াই লক্ষাধিক টাকার কসমেটিকসও পার্টস উদ্ধার! শীঘ্রই চালু হতে যাচ্ছে বুড়িমারী থেকে সরাসরি ঢাকাগামী “তিনবিঘা এক্সপ্রেস” ট্রেনটি লালমনিরহাট তুষভান্ডার ইউপির-দলগ্রাম রাস্তা মেরামত ধর্ষনে সহায়তাকারী এক নারীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৩ ধুনটে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী সাংসদের ছোট ভাই রেজা ধুনটে সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত লালমনিরহাটে শত শত একর জমির আমন ক্ষেত নষ্ট হতাশা গ্রস্থ্য কৃষক কুল হাতীবান্ধার যুবক ফেন্সিডিল সহ ডিমলা পুলিশের হাতে গ্রেফতার ডিমলায় কৃষকদের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ পাটগ্রামে সিংগিমারী নদীতে নিখোঁজ যুবকের লাশ উদ্ধার

লালমনিরহাটে অস্ত্র মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী এর জমজমাট মাদক ব্যবসা

এস বাবু রায় লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাটে অস্ত্র মামলার ৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী এর জমজমাট মাদক ব্যবসা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। থানা পুলিশ জানায়, শহরের রামকৃষ্ণ মিশন রোডস্থ মৃত: কালীপদ ভদ্রের ছেলে ভদ্র। সে মাছ ব্যবসা, পরিবহন ব্যবসা ও গরুর খামারের আড়ালে দীর্ঘদিন থেকে অস্ত্র ও মাদক ব্যবসা করে আসছে। ২০০৩ সালে একটি অস্ত্র মামলায় আদালত তাকে ৭বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। উক্ত মামলায় ২০০৩ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত লালমনিরহাট জেলা কারাগারে ছিলেন বলে কারাগার সুত্রে জানা গেছে। অব্যাহত মাদক ব্যবসার কারনে উক্ত সুজিতের বিরুদ্ধে লালমনিরহাট সদর থানায় ৯টি ও কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী থানায় ১টি মামলা দায়ের হয়। সদর থানা পুলিশ মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা কালে মাদক মামলার ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী সুজিত ভদ্রকে ১৯/৩/২০১৯ সালের গ্রেফতার করেন। ওই মামলায় জামিনে বেড়িয়ে আসলেও পরে চলতি বছরের ৯ ফ্রেব্রুয়ারী তিস্তা সেতু টোল প্লাজায় তার ট্রাক আটক করে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমান গঁাজা উদ্ধার করেন এস আই সেলিম রেজা ও এ এস আই আতাউল গণি প্রধান। এর আগে ২০১৮ সালে সুজিত ভদ্রের ট্রাকসহ তার সহযোগি নুরুল হক ঘটি, দোয়েল ও ড্রাইভার ফজলুদেরকে ১০কেজি গঁাজা উদ্ধারসহ তাদেরকে আটক করেন এ এস আই খাদেমুল। যার মামলা নং-৫০,তাং-২৪/৮/২০১৮ইং। এছাড়াও ২০১৬ সালে সুজিতের পিকআপসহ তার ড্রাইভারকে গঁাজাসহ আটক করেন এস আই মানিক মিয়া। ওদিকে সুজিতের খামার দেখা শুনার দায়িত্বে থাকা লাকি ওরপে মমি ৩০ কেজি গঁাজাসহ আটক হয় পুলিশের হাতে। উল্লেখ্য থাকে যে, ২০০৩ সালে লালমনিরহাট জেলা কারাগারে সাজা ভোগ করার সময় তার সাথে বিভিন্ন স্থানের কুক্ষ্যাত মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে সুজিতের পরিচয় হয়। সাজা ভোগ শেষে বেরিয়ে এসে সুকৌশলে মাছ, পরিবহন ব্যবসা ও গরুর খামারের আড়ালে দীর্ঘদিন মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসে। এত অল্প সময়ের মধ্যে উক্ত সুজিত হঠাৎ করে বিপুল পরিমান অর্থের মালিক হয়ে যায়। স্থানীয় জনগণের বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠলে এখবর থানা পুলিশে গড়ায়। দীর্ঘদিন থেকে উক্ত সুচতুর সুজিত পুলিশের চোখকে ফাকি দিয়ে মাদক ব্যবসা করে সে রাতারাতি কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যায়। তৎকালীন পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক লালমনিরহাটে যোগদানের পর হতে মাদক নির্মুলে জিরো টলারেন্স ঘোসনা করেন। প্রেক্ষিতে লালমনিরহাট সদর থানা পুলিশ একে একে অসংখ্য মাদক ব্যবসায়ীকে আটকসহ বিপুল পরিমান মাদকের চালান উদ্ধার করতে সক্ষম হন। পুলিশের অব্যাহত মাদক বিরোধী অভিযানের ফলে সুজিতের মাদক ব্যবসার ধস নামে। ওদিকে শহরেরে স্টোর পাড়াস্থ অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে কর্মচারী নায়েব আলীর নাবালক পুত্র হারুন জানায়, ২০১১সালে সুজিত ভদ্র একটি পাইপগান নিয়ে রেলওয়ে মুক্তমঞ্চের সামনে আসলে র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে নাবালক হারুনের হাতে ব্যাগটি দিয়ে বলে সোহরাওর্য়াদী মাঠের পাশে এক লোক দাড়িয়ে আছে এই ব্যাগটির জন্য। তুমি ব্যাগটি তার কাছে পৌছে দিয়ে আসো তোমাকে উপযুক্ত পুরস্কার দেয়া হবে। নাবালক হারুন সরল মনে ব্যাগটি নিয়ে মাঠের দিকে রহনা দিলে র‍্যাব তাকে আটক করলে উক্ত সুচতর সুজিত সেখান থেকে পালিয়ে যায়। র‍্যাব আটকৃত হারুনকে লালমনিরহাট সদর থানায় সোর্পদ করে একটি মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি নিয়ে সদর থানা পুলিশ তদন্তে মাঠে নামে। আটকৃত হারুন জানায়, ব্যাগের ভিতরে কি ছিল তা আমার জানা ছিলনা পরে জানতে পারি। এদিকে পাইপগানটি যে সুজিতের ছিল সে বিষয়টি পুলিশ বা র‍্যাবকে তার নাম যাতে না বলা হয় সে জন্য সুজিত তাকে হুমকি প্রদান করে। সুজিত হারুনকে বলে, ঘটনাটি যেন গোপন থাকে যত টাকা লাগুক তোমাকে জেল থেকে বের করা হবে। কিন্তু ২বছরের অধিক হারুন লালমনিরহাট জেলা কারাগারে হাজত বাস করলেও উক্ত সুজিত হারুনের কোন খোজ খবর নেয়নি বলে সে সাংবাদিকদের জানায়। পরবর্তীতে হারুনের পরিবারের লোকজন মহামান্য হাইকোর্ট থেকে তাকে জামিনে বের করে নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মাহাফুজ আলম বলেন, সুজিত ভদ্র একজন মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ী। সে তার অপকর্ম ধামাচাপা দেয়ার জন্য এস আই সেলিম রেজার বিরুদ্ধে একটি মনগড়া অভিযোগ উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তার বরাবরে প্রেরণ করে নিজেকে সাধু হিসেবে জাহির করার চেষ্টা করছে। এ প্রসঙ্গে জেলা পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা বলেন, লালমনিরহাট জেলা পুলিশ কোনভাবেই মাদক কিংবা অন্য যে কোন অপরাধকেই প্রশ্রয় দেয় না, বরং সকল প্রকারের অপরাধ ও অনিয়ম নির্মূলে কঠোর অবস্থানে থেকে দায়িত্ব পালন করে থাকে। যার প্রমাণ বিগত ছয় মাসের বেশ কয়েকটি ঘটনার মধ্যদিয়ে লালমনিরহাটবাসী সম্যক অবগত রয়েছেন। সমাজ থেকে মাদক নির্মূলে যথাযথ আইনি প্রক্রিয়ায় কাজ করে যাবে লামনিরহাট জেলা পুলিশ। মাদকের দুষ্টচক্র ভাঙ্গতে এক্ষেত্রে কাউকে কোন ছাড় দেয়া হবে না। এব্যাপারে সুজিতের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি কথা বলবেন না বলে জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 Daily Lal Barta
Design & Developed BY N Host BD