শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০২:২৯ পূর্বাহ্ন

ঘোষনাঃ-
সারাদেশে সকল জেলা ও উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ করা হইবে, আগ্রহী প্রার্থীগণকে নিম্ন ঠিকানায় অথবা ইমেইল এ আবেদন পত্র জমা দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হইলো।
শিরোনাম :
বুড়িমারীতে কোরআন অবমাননা ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগে একজনকে পুড়িয়ে মেরে জনতার উল্লাসঃপুলিশের ফাঁকাগুলি ত্রিশালে বিভাগীয় কমিশনারের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত তিস্তায় নির্মিত হবে সমান্তরাল তৃতীয় বৃহত্তম রেলসেতু পাটগ্রামে একই দিনে সড়ক দুর্ঘটনায়-২জনের মৃত্যু প্রধানমন্ত্রী উদ্যোগ নিয়েছেন তিস্তাপাড়ের মানুষকে সমৃদ্ধিশালী করার পাটগ্রাম পৌরসভায় ল্যাকটেটিং মাদার কর্মসূচীর আওতায় সাড়ে তিন’শ নাম তালিকার বিপরীতে আবেদন পরেছে দুই সহস্রাধিক কালীগঞ্জে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার বগুড়া ধুনটে জুমআর নামাজ পর উপজেলা চেয়ারম্যানের গাছের চারা বিতরণ পাটগ্রামে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় অন্তঃসত্ত্বা-ধর্ষক গ্রেফতার লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় জাল ভোট দেয়ার চেষ্টা ২ আওয়ামীলীগ কর্মীর কারাদন্ড হাতীবান্ধায় প্রয়াত বাবার পর ছেলে বিজয়ী হাতীবান্ধা গড্ডিমারী ইউনিয়নে(ইউপি) চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনে ভোট বর্জনের ঘোষণা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রসমুহের জন্য নিরাপদ অভিবাসন বিষয়ে প্রশিক্ষণ কালীগঞ্জে চেয়ারম্যান পদের উপ-নির্বাচনে নৌকা-ধানের শীষকে পেছনে ফেলে জয়ী মোটরসাইকেল পাটগ্রামে পোল্ট্রি খামার ব্যবসায়ীর নিকট ফাঁকা চেক ও অলিখিত স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে পাটগ্রাম উপজেলার কুচলিবাড়ী ইউনিয়ন নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন প্রতিরোধে বিট-৪৭ পুলিশিংয়ের সমাবেশ অনুষ্ঠিত মা ইলিশ ও সম্পদ রক্ষায় নতুন দুটি প্রস্তাবনা ডিমলায় পূর্ব শত্রুতার জেরে মাছের পুকুর দখলের অভিযোগ প্রেসক্লাব, লালমনিরহাট এর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় অভিনন্দন সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেনকে অনলাইন ক্লাশ পরিচালনায় পাটগ্রামে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানগণের সাথে মতবিনিময় করলেন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক

জীবিত স্বামীকে মৃত্যু দেখিয়ে হাতীবান্ধায় একাধিক ব্যক্তি’র বিধবা ভাতা একে অপরকে দোষারোপ করছেন সংশ্লিষ্টরা

এস বাবু রায়, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নে জীবিত স্বামীকে মৃত্যু দেখিয়ে একাধিক ব্যক্তি বিধবা ভাতা গ্রহন করছেন। একে অপরকে দোষারোপ করছেন সংশ্লিষ্টরা। ইউএনও বরাবর এলাকাবাসীর লিখিত অভিযোগ। বিধবা ভাতা গ্রহনকারী ব্যক্তিরা বলছেন চেয়ারম্যান আমাদের কাছে কাগজ চেয়েছে আমরা দিয়েছি, কিসের ভাতা দিয়েছে তা জানিনা। প্রাপ্ত অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী চাচ্ছেন গৃহিত জনকল্যাণ মূলক কর্মসুচীতে গ্রামের তৃর্নমুল পর্যায়ের মানুষ সুবিধা পাক কিন্তু উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রেজ্জাকুল ইসলাম কায়েদ,ইউপি সদস্য ও সমাজসেবা অধিদপ্তর এর ইউনিয়ন কর্মী আব্দুল জলিল নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে তাদের পছন্দের লোকজনের নাম বিধবা ও স্বামী নিগৃতা (পরিত্যাক্তা) ভাতায় অন্তরভূক্ত করেছে। যেখানে বিধবা বলতে নীতিমালায় আছে যার স্বামী মৃত্যু বরণ করেছেন, স্বামী নিৃহীতা বলতে (পরিত্যাক্তা) কিন্তু চলতি অর্থ বছর (২০১৯/২০২০) ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের বিধবা ও স্বামী নিগৃতা ভাতায় যাদের নাম অন্তরভূক্ত করা হয়েছে তাদের বেশি ভাগ ব্যক্তির স্বামী জীবিত আছে। স্বামীর সাথে সংসার করে আসছেন এমন একাধিক মহিলা বিধবা ভাতা’র টাকা উত্তোলন করেছেন। চেয়ারম্যান,ইউপি সদস্য ও সমাজসেবা অধিদপ্তর এর ইউনিয়ন কর্মী নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে তাদের পছন্দের লোকজনের নাম বিধবা ভাতা ও স্বামী নিগৃতা (পরিত্যাক্তা) ভাতায় অন্তরভূক্ত করেছে জেনে এলাকাবাসী ০৪/১০/২০ইং তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন। সরেজমিনে মঙ্গলবার ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নে বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখাগেছে, ৯ নং ওয়ার্ডের জোহরা খাতুন, নুরনাহার খাতুন, মহিলা খাতুন,দেলেজান নেছা সহ আরো অনেকের স্বামী জীবিত আছেন। ৮ নং ওয়ার্ডে দৌলতন নেছা,৫ নং ওয়ার্ডের মাহফুজা আক্তার সহ পুরো ইউনিয়নে আরোও অনেক ব্যক্তির স্বামী এখনও জীবিত আছেন। স্বামী জীবিত বিধবা ভাতা’র টাকা উত্তোলন করেছেন স্বীকার করে ৯ নং ওয়ার্ডের নুরনাহার খাতুন ও মহিলা খাতুন বলেন, কায়েদ চেয়ারম্যান আমাদের কাছে কাগজ চেয়েছে আমরা দিয়েছি আমাদের নামে কিসের ভাতা হয়েছে তা জানিনা। ৮ নং ওয়ার্ডে দৌলতন নেছ সহ নাম প্রকাশ না করা শর্তে সুবিধাভোগী অনেকে বলেন,বয়স্ক ভাতার কথা বলে আমাদের কাছ থেকে কাগজ নিয়েছে এখন দেখি বিধবা ভাতা হয়েছে। এলাকাবাসী অনেকে অভিযোগ করে বলেন, সমাজসেবা অধিদপ্তর এর ইউনিয়ন কর্মী আব্দুল জলিল এর সহযোগিতায়,ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য গণ এমন অনিয়ম করেছেন। নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক ইউপি সদস্য বলেন,যাদের স্বামী জীবিত আছে তাদের নাম চেয়ারম্যান দিয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদের ভাগের তালিকা দেখলে জানা যাবে কে দিয়েছে নাম। এ বিষয়ে অত্র ইউপি চেয়ারম্যান রেজ্জাকুল ইসলাম কায়েদ বলেন,ইউপি সদস্যরা আমাকে তালিকা দিয়েছে আমি বিশ্বাস করে স্বাক্ষর করে দিছি। সমাজসেবা অধিদপ্তর এর ইউনিয়ন কর্মী আব্দুল জলিল বলেন,চেয়ারম্যান আমাকে তালিকা দিয়েছে তাই আমি যাচাই না করে অফিসে জমা দিয়েছি। কেন যাচাই করলেন না? এমন প্রশ্নের কোন উত্তর দেয়নি আব্দুল জলিল। উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার মাহাবুবুল আলম বলেন,তদন্ত চলছে সত্যতা পেলে যাদের স্বামী আছে তাদের নাম কর্তন করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল আমিন অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন,তদন্ত করে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 Daily Lal Barta
Design & Developed BY N Host BD