বৃহস্পতিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২০, ০৭:৩২ অপরাহ্ন

ঘোষনাঃ-
সারাদেশে সকল জেলা ও উপজেলায় প্রতিনিধি নিয়োগ করা হইবে, আগ্রহী প্রার্থীগণকে নিম্ন ঠিকানায় অথবা ইমেইল এ আবেদন পত্র জমা দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হইলো।
শিরোনাম :
পাটগ্রামে সিংগিমারী নদীতে নিখোঁজ যুবকের লাশ উদ্ধার ডিমলা থানা পুলিশের প্রচেষ্টায় দুধের শিশু ফিরে পেল তার মায়ের কোল পাটগ্রামে সিংগীমারী নদীতে ডুবে যুবকের মৃত্যু- লাশ পাওয়া যায়নি লালমনিরহাট পৌরসভার মশক নিধন অভিযান শুরু বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ডিমলায় নারীর মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ রংপুর সিটি প্রেসক্লাবের সাধারণ সভায় স্বপন সভাপতি : মানিক সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত লালমনিরহাটে অস্ত্র মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী এর জমজমাট মাদক ব্যবসা লালমনিরহাটে মুসলিম এইড এর কোরবানির গোস্ত ও অর্থ বিতরণ পাটগ্রামের আকাশ থেকে নক্ষত্রের বিদায়: একটি পর্যালোচনা তিস্তার পাড়ের মানুষ নদী ভাঙন রোধে কার্যকর বাঁধের দাবিতে নদীর তীরে মানববন্ধন খুব শীঘ্রই শেষ হতে যাচ্ছে বেসরকারি শিক্ষকদের ভোগান্তির অবসান লালমনিরহাটে স্বামীকে হত্যার দায়ে নববধু পুলিশের হাতে আটক লালমনিরহাটে সাংবাদিকের বাড়ীতে সন্ত্রাসী হামলা দম্পতিসহ আহত ৫, তিনদিনেও গ্রেফতার হয়নি, মামলা তুলে নেয়ার হুমকী দিনাজপুর জেলা পুলিশের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীতে পুলিশ সুপার বঙ্গবন্ধু এদেশ স্বাধীন করেছেন বলেই আজকে আপনি আমি সোনার বাংলাদেশ পেয়েছি মালয়েশিয়ার ব্রাইটন ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রথম সমাবর্তন লালমনিরহাটে সাংবাদিক বদিয়ার রহমানের পরিবারের উপর অতর্কিত হামলা মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপন করেছে প্রফিট ফাউন্ডেশনের ইয়ুথ সদস্যরা। চাঙ্গা হয়ে উঠতেছে দৈখাওয়ার হাট লালমনিরহাটে প্রফিট ফাউন্ডেশন এর কার্য-নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত পাটগ্রামে পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযান, ৯০পিস ইয়াবাসহ আটক-২

আমি ও আমার সাংবাদিকতা….

১৯৭৭সালের ২৯নভেম্বর কুচলিবাড়ী ইউনিয়নে সমশেরপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করি, বাবা একজন সাধারণ কৃষক ছিলেন, মা গৃহীনি। ১৯৯১সালে আমার বাবা না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। ১৯৯৫সালে পাটগ্রাম টিএন স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায়  উত্তির্ন হই। ১৯৯৬সালে জীবন বাঁচানোর  তাগিদে পাড়ি জমাতে হয় ঢাকায়। কর্মের পাশাপাশি নিজেকে গড়ে তুলতে ভর্তি হই তিতুমীর কলেজে এইচএসসি প্রথম বর্ষে। অনেক কষ্ট করে  চালিয়ে যাই আমার লেখাপড়া, উত্তির্ন হই এইচএসসি পরীক্ষায়। শুরু হয় জীবনের আরেক ধাপ এগিয়ে চলা। অবশেষে ভর্তি হই অনার্স করতে দুর্ভাগ্য জনক হলেও সত্যি যে অনার্স পাশ করার সৌভাগ্য আমার হয়নি। পারিবারিক বিভিন্ন চাপে আমাকে থমকে দাঁড়াতে বাধ্য হতে হয়। সমাপ্তি করতে হয় শিক্ষা নামক আলোর প্রদীপকে। শুরু হলো আমার জীবনের নতুন করে পথচলা….
আমার বয়স তখন ২৬বছর-২০০৪ সালে, সাংবাদিকতার প্রথম হাতে খড়ি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক বাংলার দূত পত্রিকায় নিয়োগ পেলাম পাটগ্রাম উপজেলা প্রতিনিধি হিসেবে, শুরু হলো আমার সাংবাদিকতার পথচলা, ২০০৫সালে এসে সংযুক্ত হলাম দৈনিক বাংলাদেশ সময় পত্রিকায় ও আঞ্চলিক পত্রিকা উত্তর অঞ্চলের বহুল আলোচিত প্রচারিত প্রকাশিত দৈনিক বগুড়া, ২০০৮ সালে এসে যোগদান করি দেশবন্ধু গ্রুপের দৈনিক আজকালের খবর পত্রিকায়, অনেক হুমকি ধামকি আর ঝড় ঝাপটার মধ্য দিয়ে পাটগ্রাম উপজেলার মাঠে ময়দানে টিকে থাকার আরেক লড়াই, ২০১১সালে এসে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির রোষানলে পড়ে বিএনপি অস্থায়ী অফিসের অগ্নি সংযোগের ছবি তুলতে গিয়ে আমার হাত থেকে ছিনিয়ে নেয়া হয় ক্যামেরাটা, আমাকে করা হয় লাঞ্ছিত, আমার পথচলা থেমে নেই তখনো, ক্যামেরাটি উদ্ধার করতে অনেক রাজনৈতিক নেতার কাছে দারস্থ হই কিন্তু কেউ একটু সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেননি। একই সালে আমার আমার বাড়িতে সুপরিকল্পিতভাবে পূর্ব শত্রুতার জের ও রাজনৈতিক জের ধরে আমার পরিবারের লোকজনের উপর চালানো হয় নির্মম নির্যাতন, তারপরে থেমে যায়নি আমার পথ চলা, আমার পরিবারের উপর নির্মম নির্যাতনের প্রতিবাদে স্থানীয় সুধী সমাজ পাটগ্রাম উপজেলার চৌরাস্তা মোড়ে হামলাকারীদের বিচার ও শাস্তির  দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবী জানান,  কিন্তু প্রশসান তখনো রাজনৈতিক কারণে কোন পদক্ষেপ নেননি। চলার পথে আমি একমাত্র অবলম্বন আমার পরিবারের।  নানান প্রতিকুলতা মোকাবেলা করে চলতে গিয়ে অনেকে সাথে মনোমালিন্য হয়েছে বটে, তবে কারো ক্ষতিটুকু করিনি।
সাংবাদিকতার পাশাপাশি নিজেকে সামাজিক বিভিন্ন কর্মকান্ডে জড়িয়ে নিয়ে ২০১১সালেই স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে সাধারণ সদস্য হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করি, কিন্তু দীর্ঘদিন আমার এলাকার বাহিরে অবস্থান করার কারণ নির্বাচনে জনপ্রিয়তা কমছিলো। ২০১৬ সালে একটি অনলাইন ভিত্তি নিউজ পোর্টাল তৈরি করি “দৈনিক লালবার্তা” নামে। পা পা করে এগিয়ে যেতে থাকি বাধাহীনভাবে। মাথার উপর ছায়া হিসেবে পাশে দাঁড়ান এক সময়ের তুখোর ছাত্র নেতা আমার শ্রোদ্ধাভাজন মোস্তফা হাসান ভাই। তার ভালবাসা ও দোয়া নিয়ে  আবারও সাংবাদিকতার পাশাপাশি নিজেকে জনগণের সাথে মিশিয়ে দিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করি। নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করে হাজারো মানুষের ভালবাসা নিয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হই। বিধাতার খেলা বুঝতে পারি না, কখন কোন খেলা খেলে। চলছে আমার অবিরাম পথচলা।
              সংক্ষিপ্ত………..
জিয়াউর রহমান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক
ডেইলী লালবার্তা

নিউজটি শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 Daily Lal Barta
Design & Developed BY N Host BD